মহামারী করোনা
করোনায় আজ ৬৩ মৃত্যু, শনাক্তেও রেকর্ড অক্সফোর্ডের টিকার শিশুদের ওপর ট্রায়াল স্থগিত অক্সফোর্ডের টিকার শিশুদের ওপর ট্রায়াল স্থগিত এবার ভারতে একদিনে করোনা সংক্রমন ছাড়ালো ১লাখের বেশি দেশজুড়ে লকডাউন চলছে করোনা টিকার ২০ লাখ ডোজ আসছে আজ
মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
প্রকাশ : ৩০/৪/২০২১ ৫:৩৭:৩০ PM

মির্জাগঞ্জে বাঁশের সাঁকোটিই ১০ গ্রামের মানুষের ভরসা!

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের মোল্লা বাড়ির সামনে হুজুর আলীর খালের ওপর ঝুঁকিপূর্ন বাশেঁর সাঁকো দিয়ে পারাপারে ছাত্রছাত্রী সহ ১০ গ্রামের মানুষের দুভোর্গ পোহাতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। 

সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়, ৪১ বছরেরও বেশি সময়কাল ধরে এ খালের উপরে বাঁশের সাকোঁতে ঝুঁকিপূর্ন ভাবে চলাচল করে আসছে এখানকার সাধারণ জনগন । সরকার আসে সরকার যায় কিন্তু সাঁকোটি হয়নি কোন পরিবর্তনের ছোয়া এখানে পরেনি ।

কোনো নির্বাচন এলেই এই সাঁকোটির পরিবর্তে ব্রীজ কিংবা কালভার্ট নির্মানের আশ্বাস দেন প্রার্থীরা। কিন্তু নির্বাচন চলে গেলেও এখানে ব্রীজ আর নির্মান হয়না বলে জানান স্থানীয়রা।

একটি সেতুর জন্য উত্তর আমাড়াছিয়া গ্রামের সার্বিক যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হবার উপক্রম হয়েছে। খালের উপর সংযোগ সেতু না থাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক স্কুল,কলেজ ও মাদ্রসার শিক্ষার্থী এবং জনসাধারন পড়েছে চরম ভোগান্তিতে।

দীর্ঘ দিনের দাবীর পরেও বিদ্যালয় সংলগ্ন হুজুর আলী খালের উপর সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষ সংযোগ সেতু নির্মানের নেয়নি কোনো ব্যবস্থা। বর্তমানে জীবনের ঝুকিঁ নিয়ে বাঁশের সাকোঁ দিয়ে শিক্ষার্থীসহ জনসাধারনকে চলাচল করতে হচ্ছে।

ফলে বর্ষা মৌসুমে এলেই সাঁকো দিয়ে চলাচলে দূর্ভোগের এখানকার সাধারণ মানুষরা।

আমাগাছিয়া,উত্তর ছৈলাবুনিয়া, কিসমত ছৈলাবুনিয়া, সুবিদখালী সরকারি কলেজ, সুবিদখালী মহিলা ডিগ্রী কলেজ, উপজেলা সদরস্থ সুবিদখালী বাজারে এবং মির্জাগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে যেতে হলে এই বাঁশের সাঁকো দিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে শিক্ষার্থী সহ এলাকাবাসীর।

মোঃ কাদের জানান , গ্রামবাসীদের উদ্যেগে বাশেঁর সাঁকোটি নির্মাণ করা হয় অনেক বছর আগে। নিজেদের উদ্যোগে প্রতিবছরই বাশেঁর সাঁকোটি মেরামত করি। এর আগে এখানে ঝুঁকি নিয়ে নৌকায় পারাপার হত এ এলাকার মানুষ।

এখানে ব্রীজটি নির্মান না হওয়ার অভাবে শিক্ষা, চিকিৎসা ও কৃষি ক্ষেত্রেও  গ্রামের লোকজনসহ নানা সমস্যার মধ্যে পড়তে হচ্ছে চলাচলরত ১০ গ্রামের মানুষকে।

হুজুর আলী খালের উপর সাঁকো দিয়ে বিভিন্ন গ্রামের মানুষ চলাচল করে থাকে। অনেক সময়ে পথচারীরাসহ শিক্ষার্থীরা পা ফসকে খালে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়।

নির্বাচনের সময়ে প্রার্থীরা সবাই এখানে সাঁকোর পরিবর্তে ব্রীজ নির্মানের আশ্বাস দেন কিন্তু নির্বাচন শেষ হলে আমাদের কথা কেউ মনে রাখে না।

তাই উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে এখানে ব্রীজটি নির্মানের দাবী জানান সাধারণ মানুষারা।

বিদ্যালয় সংলগ্ন খালের ওপর নড়বড়ে সাকোঁ দিয়ে বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা পারাপার হতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনায় শিকার হয়। তাই উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিকবার অবহিত করা হলেও কোন কাজ হয়নি।

এ খালের উপর ব্রীজ নির্মান করা হলে এ বিদ্যলয়ের শিক্ষার্থীসহ পথচারীদের চলাচলে সুবিধা হবে।



সপ্তাহের সর্বাধিক পঠিত খবর সমূহ
অন্যান্য খবর