• |
×
৭ কোটি ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ, প্রতি ডোজের দাম ১৩৮-১৭০ টাকা কারা অধিদপ্তর সূত্র জানায়, আদালতে ফাঁসির রায় ঘোষণার পর আসামিকে কারাগারের কনডেম সেলে নেওয়া হয়। এই বন্দীদের মধ্যে ৪৯ জন নারী। দেশে এখন পর্যন্ত কোনো নারীর ফাঁসি কার্যকর হয়নি। বরগুনায় রিফাত শরিফ হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আয়শা আক্তার ওরফে মিন্নিসহ মোট ৮৮৮ জন বন্দী দেশের ৬৮ কারাগারের কনডেম সেলে আছেন। কনডেম সেলের বন্দীদের জন্য আচরণবিধিও ভিন্ন দেশের ৬৮ কারাগারে মোট ৮৮৮ জন বন্দী কনডেম সেলে
টি এইচ জায়িম, ইবি প্রতিনিধি
প্রকাশ : ৫/৯/২০২২ ৮:৩২:০১ PM

নয় দফা দাবিতে আন্দোলনে ইবির খেলোয়াড়রা

বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্বিবিদ্যালয় চ্যাম্পিয়নশিপে টিম পাঠানো সহ ৯ দফা দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) খেলোয়াড়রা। সোমবার দুপুরে এ দাবিতে বিশ^বিদ্যালয় শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালক ড. সোহেলের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন তার। পরে আশ্বাস না পাওয়ায় জিমনেশিয়ামে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে খেলোয়াড়রা।

বিক্ষোভটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে গিয়ে অবনস্থান কর্মসূচীতে মিলিত হয়।

এসময় তারা ৯ দফা দাবি পূরণের জন্য নানা শ্লোগান দেন। তাদের দাবিগুলো হলো, বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্বাবদ্যালয় চ্যাম্পিয়নশীপের প্রতিটি খেলায় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা, চলতি বছরে আন্তঃবিভাগ ফুটবল ও ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আয়োজন, ক্রিকেট ও ফুটবল মাঠ সবসময় খেলার উপযোগী রাখা, জিমনেশিয়ামের ভেতরে লাইট সংস্কার করা, ক্রিকেট মাঠে ফিক্সড নেটসহ ২টি কংক্রিটের পিচ বানানো, খেলার মাঠে বিশুদ্ধ খাবার পানির ব্যবস্থা করা ও খেলোয়াড়দের বসার জন্য খেলার ছাউনি বানানো, জিমনেসিয়ামে খেলার সময় রাত সাড়ে ৭টা থেকে বাড়িয়ে সাড়ে ৮টা করতে হবে।

পরে অবস্থান কর্মসূচীতে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলতে আসেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম। উপাচার্য বিষয়টি ভেবে দেখার আশ্বাস দিলে আন্দোলন স্থগিত করেন তারা। তবে দাবি না মানলে আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে জানান তারা।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেন, বঙ্গবন্ধু চ্যাম্পিয়নশিপের ১১টি গেমে অংশগ্রহণ করার জন্য রেজিষ্ট্রেশন করেছেন প্রশাসন। আমরা ১১টি ইভেন্টে অংশগ্রহণের জন্য ইতোমধ্যে প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। ইতোপূর্বেও আমরা সকল খেলায় কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছি। কিন্তু বাজেট সংকট দেখিয়ে মাত্র ৪টি ইভেন্টে অংশগ্রহণের কথা বলছে প্রশাসন।

শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালক ড. মোহাম্মদ সোহেল বলেন, আমরা সকল টিম পাঠাতে চাই। এক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ বাজেট দিলে আমরা অবশ্যই টিম পাঠাবো।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, আমাদের সাধ্য অনুযায়ী আমরা টিম পাঠাবো। সাধ্যের বাইরে তো কিছু করা যায় না।