মহামারী করোনা
করোনা টিকার ২০ লাখ ডোজ আসছে আজ করোনা টিকার দ্বিতীয় চালান আসবে ২২ ফেব্রুয়ারি করোনার টিকা নিতে আগ্রহী বাংলাদেশের ৬৬ শতাংশ মানুষ দেশে করোনায় সর্বনিম্ন মৃত্যু টিকায় আস্থা রাখলেন ডা. জাফরুল্লাহ ঢাকার যেসব হাসপাতালে আজ থেকে করোনার টিকা প্রয়োগ হবে
সোহেল কান্তি নাথ, বান্দরবান প্রতিনিধি
প্রকাশ : ২০/২/২০২১ ৮:৫৩:২৫ PM

টানা ৩দিনের ছুটিতে পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত বান্দরবান 

পর্যটকদের রুম দিতে হিমশিম খাচ্ছে হোটেল ব্যবসায়ীরা। বেশীরভাগ পর্যটকরা আগে থেকে রুম বুকিং করে রাখায় নতুন পর্যটকদের রুম দিতে পারছে না বলে জানান হোটেল ব্যবসায়ীরা। ফালকি গেষ্ট হাউসের পরিচালক আলাউদ্দিন শাহরিয়ার বলেন টানা ৩ দিনের ছুটি থাকায় বিপুল পর্যটকের সমাগম ঘটেছে। সব গুলো রুম অগ্রিম বুকিং থাকায় অনেক পর্যটককে রুম দিতে পারছি না। অনেকে রুম না পেয়ে চলে গেছে। 

টানা ৩ দিনের ছুটিতে দেশী-বিদেশী অসংখ্য পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত হয়েছে বান্দরবান। পর্যটন স্পটগুলোতে পর্যটকের উপচে পড়া ভীড় পড়েছে। প্রতিবছর সরকারি বিভিন্ন ছুটিতে পর্যটকের ঢল নামে পাহাড় কন্যা বান্দরবানে। কিন্তু করোনার কারনে দীর্ঘ দিন পর্যটক শূন্য ছিল পর্যটন নগরী বান্দরবান।

তবে এবার ২১ ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে টানা ৩ দিনের ছুটি থাকায় পর্যটকের উপচে পড়া ভীড় লক্ষ্য করা যায়। শুক্রবার সকাল থেকে শহরের হোটেল মোটেল গেষ্ট হাউজ গুলোতে তিল ধারনের ঠাই নেই কোথাও।

 

https://i.ibb.co/bB3d3JR/3.jpg

 

পর্যটকদের রুম দিতে হিমশিম খাচ্ছে হোটেল ব্যবসায়ীরা। বেশীরভাগ পর্যটকরা আগে থেকে রুম বুকিং করে রাখায় নতুন পর্যটকদের রুম দিতে পারছে না বলে জানান হোটেল ব্যবসায়ীরা।

ফালকি গেষ্ট হাউসের পরিচালক আলাউদ্দিন শাহরিয়ার বলেন টানা ৩ দিনের ছুটি থাকায় বিপুল পর্যটকের সমাগম ঘটেছে। সব গুলো রুম অগ্রিম বুকিং থাকায় অনেক পর্যটককে রুম দিতে পারছি না। অনেকে রুম না পেয়ে চলে গেছে। 

প্রতি বছর শীত মৌসুম ও টানা ছুটিতে পর্যটকের আগমন ঘটে বান্দরবানে কিন্তু করোনার কারনে দীর্ঘ দিন পর্যটক শূন্য থাকায় নির্জীব হয়ে পড়েছিল পর্যটন নগরী বান্দরবান। লোকসান গুনতে হয়েছে পর্যটন সংশ্লিষ্ঠ ব্যকসায়ীদের।

অনেক দিন পর টানা ৩ দিনের ছুটিতে পর্যটকের ঢল নেমেছে পাহাড় কন্যা বান্দরবানে। শুক্রবার দুপুরে বান্দরবানের বিভিন্ন পর্যটন স্পট ঘুরে দেখা গেছে পর্যটকদের উপচে পড়া ভীড়।

 

https://i.ibb.co/wBpVbx6/2.jpg

 

সেনাবাহিনীর পরিচালিত নীলগিরি জেলা প্রশাসন পরিচালিত মেঘলা, নীলাচল, এবং স্বর্ণ মন্দির সব জায়গা এখন পর্যটকদের পদচারনায় মুখর। শিশু বৃদ্ধ যুবক যুবতিরা তাদের প্রিয়জনদের নিয়ে চাঁদের গাড়ীতে করে ঘুরে বেড়াচ্ছে দর্শনীয় সব স্থান।

কেউ কেউ ছুটে যাচ্ছে থানচির নাফাকুম রেমাক্রী দেখতে। ঢাকা থেকে বেড়াতে আসা এক দম্পত্তি জানান অনেক দিন করোনার কারনে কোথাও বেড়াতে যেতে পারিনি তাই ৩ দিনের ছুটি পাওয়ায় পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসেছি। এদিকে অনেকদিন পর এতো পর্যটকের আগমন ঘটায় খুশি হোটেল-মোটেল, রেষ্টুরেন্ট ও পরিবহন সেক্টরের মালিকরা।

পরিবহন শ্রমিক নেতা বাহাদুর জানান পর্যটকদের জন্য আমাদের প্রায় ৪০০ চাঁদের গাড়ী রয়েছে। এতো বেশী পরিমান পর্যটক এসেছে এ গাড়ী দিয়েও আমরা সার্ভিস দিতে পারছি না।

হোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম জানান করোনার কারনে দীর্ঘদিন পর্যটক শূন্য ছিল বান্দরবান অনেকদিন পর টানা ছুটিতে প্রচুর পর্যটকের আগমন ঘটেছে।

 

https://i.ibb.co/F3D72Wt/1.jpg

 

ব্যবসায়ীরা অনেক খুশি। এদিকে পর্যটকদের যাতে কোন অসুবিধা না হয় সে লক্ষে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

বান্দরবান জেলার পুলিশ সুপার জেরিন আক্তার জানান শীত মৌসুমে পাবর্ত্য জেলা বান্দরবানে প্রচুর পর্যটক বেড়াতে আসে টানা ছুটি থাকলে পর্যটকের আগমন আরো বাড়ে তাদের কথা মাথায় রেখে টুরিষ্ট পুলিশের পাশাপাশি পর্যটকদের নিরাপত্তায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে।

এছাড়া বিভিন্ন পর্যটন স্পটে সাদা পোষাকধারী পুলিশও দায়িত্ব পালন করছে। পর্যটকরা নির্বিঘ্নে সব পর্যটন স্পট ঘুরে বেড়াতে পারবে।    



সপ্তাহের সর্বাধিক পঠিত খবর সমূহ
অন্যান্য খবর