মহামারী করোনা
৭ কোটি ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ, প্রতি ডোজের দাম ১৩৮-১৭০ টাকা দেশে করোনায় আরো ৩৯জনের মৃত্যু আগামী ছয়মাসেও দ্বিতীয় সংক্রমণের আশঙ্কা নেই দেশে করোনার সংক্রমন ফের বাড়ছে ফাইজারের টিকা করোনা প্রতিরোধে ৯৫ শতাংশ কার্যকরের দাবি করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় প্রস্তুত আছি: প্রধানমন্ত্রী
মোঃ রাশিদুল ইসলাম
প্রকাশ : ১০/১১/২০২০ ৫:১১:১৫ pm

অনুমোদনহীন মাইন্ড এইড হাসপাতাল চলে নার্স ওয়ার্ডবয় দিয়ে!

অনুমোদন ছিলো না যে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে এএসপি আনিসুল করিম হত্যার শিকার হয়েছেন সেই হাসপাতালের কোনো। হাসপাতালটির নাম ‘মাইন্ড এইড হাসপাতাল’। এটা রাজধানীর আদাবরে অবস্থিত।

এটি চলছিলো বাবুর্চি, ওয়ার্ডবয়, মার্কেটিং অফিসার কো-অর্ডিনেটর ও কো-ম্যানেজার দিয়ে। কোনো ডাক্তার ছিলো না। মঙ্গলবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির তেজগাঁও জোনের ডিসি হারুন অর রশীদ এ কথা জানান।

তিনি জানান, হাসপাতালটির মাদকদ্রব্য অধিদফতরের কোনো লাইসেন্স নেই। তাদের কোনো ডাক্তার নেই।

আসামিদের সবাইকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এখন তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

ডিসি হারুন অর রশীদ বলেন, যারা এই সিনিয়র এএসপিকে ওই কক্ষে তুলে নিয়ে গেছেন, তারা কেউ ডাক্তার না।

তারা যেভাবে এএসপিকে টর্চার করেছেন, তাতে বোঝা যাচ্ছে এটি বড় ধরনের হত্যাকাণ্ড।

আনিসের পরিবারের অভিযোগ ৩১তম বিসিএস পুলিশের এই কর্মকর্তাকে মারধর করে হত্যা করা হয়েছে।

ওই হাসপাতালটি ভর্তি করার কিছু সময় পরই তাকে মারধর করা হয় এবং এতে তিনি মারা যান।

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করায় তারা ওই রোগীকে শান্ত করার চেষ্টা করছিলেন।

আনিসুল করিম সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে বরিশাল মহানগর পুলিশে (বিএমপি) কর্মরত ছিলেন। বাড়ি গাজীপুরের কাপাসিয়ায়।

তিনি এক সন্তানের বাবা। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের ৩৩ ব্যাচের ছাত্র ছিলেন।

আনিসুল করিমের ভাই রেজাউল বলেন, আনিস কিছুটা মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন। সোমবার দুপুরে তিনি মাইন্ড এইড হাসপাতালে যান।

কাউন্টারে যখন ভর্তির ফরম পূরণ করছিলেন, তখন কয়েকজন কর্মচারী তাকে দোতলায় নেন। কিছুক্ষণ পর আনিসুল অজ্ঞান হওয়ার খবর পান। সেখান থেকে তাকে দ্রুত জাতীয় হৃদরোগ ইনিস্টিউটিটে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরো বলেন, পরে আদাবর থানা পুলিশের সহযোগিতায় হাসপাতাল থেকে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়।

এতে দেখা যায় দুপুর ১১টা ৫৫ মিনিটের দিকে পুলিশ কর্মকর্তা আনিসুল করিমকে টানাহেঁচড়া করে একটি কক্ষে ঢোকানো হয়, সেখানে হাসপাতালের ৬ কর্মচারী মিলে মাটিতে ফেলে চেপে ধরেন। এরপর নীল পোশাক পরা আরো দুজন কর্মচারী পা চেপে ধরেন। তার মাথার দিকে থাকা দুজন কর্মচারী হাতের কনুই দিয়ে আঘাত করে।

এসময় হাসপাতালের ব্যবস্থাপক আরিফ মাহমুদ পাশে দাঁড়ানো ছিলেন। পরে একটি নীল কাপড়ের টুকরা দিয়ে আনিসুলের হাত পিছমোড়া করে বাঁধা হয়।

কয়েক মিনিট পর আনিস জ্ঞান হারান। কর্মচারীদের একজন তার মুখে পানি ছিটিয়ে জ্ঞান ফেরানোর চেষ্টা করেন। কিছু সময় পর সাদা অ্যাপ্রোন পরা একজন নারী কক্ষে প্রবেশ করেন। কক্ষের দরজা লাগিয়ে আনিসের বুকে পাম্প করেন ওই নারী।



সপ্তাহের সর্বাধিক পঠিত খবর সমূহ
অন্যান্য খবর